সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ০৫:২২ পূর্বাহ্ন

শীর্ষ সংবাদ : :
কৃষক বিক্ষোভে অবরুদ্ধ দিল্লি ৩০ নভেম্বর : আজকের দিনে সিলেটে শুরু হলো MODISH এর মডেল গ্রুমিং ওয়ার্কশপ ১ম স্বীকৃতি বার্ষিকী উপলক্ষ্যে জেলা মৎস্যজীবী লীগের আনন্দ র‌্যালী দেশের কৃষক সমাজের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে সরকার: শামীমা শাহরিয়ার এমপি নয়াসড়ক ক্রীড়া সংস্থার আয়োজনে এতিমখানায় শিশুদের মাঝে খাদ্য বিতরণ আলোকিত নন্দিরগাঁও ট্রাস্টের আহ্বায়ক কমিটি গঠন বিক্রির জন্য ১০ লাখ টিকা আনতে চায় বেক্সিমকো এবার খেলোয়াড়দের বেধড়ক পেটালেন দিরাই’র ইউএনও ২৯ নভেম্বর : আজকের দিনে ভারতে গায়ে কেরোসিন ঢেলে সাংবাদিককে পুড়িয়ে হত্যা হোসাইন মোহাম্মদ এরশাদের আদর্শকে লালন করে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে : এ টি ইউ তাজ রহমান বেড়ে চলছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ও মৃত্যুর সংখ্যা ২৮ নভেম্বর : আজকের দিনে করোনাক্রান্ত ড. মোমেন দম্পতীর সুস্থতায় দোয়া কামনা সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নবেলের সুস্থতা কামনায় মিলাদ মাহফিল দেশের নন্দিত অভিনেতা আলী যাকের আর নেই মামুনুল হক ইস্যুতে বিমানবন্দরে যুবলীগ-ছাত্রলীগের অবস্থান অবশেষে আসছে ভ্যাকসিন ২৭ নভেম্বর : আজকের দিনে
মারা গেলেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়

মারা গেলেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়

ডেস্ক :: কিংবদন্তি ভারতীয় অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় আর নেই। প্রায় দেড় মাস হাসপাতালে নানান ধরনের জটিলতার সঙ্গে লড়ে রবিবার কলকাতার স্থানীয় সময় দুপুর সোয়া ১২টার দিকে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃত্যুকালে সৌমিত্রর বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর।

হাসপাতালের বরাত দিয়ে খবরটি নিশ্চিত করেছে আনন্দবাজার পত্রিকা।

গত ৬ অক্টোবর থেকে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন অভিনেতা। করোনা আক্রান্ত অবস্থায় তাকে কলকাতার বেলভিউ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। প্লাজমা থেরাপির পর তার করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। সেই সঙ্গে চিকিৎসাতেও সাড়া দিতে থাকেন তিনি। কিন্তু আচমকাই তার শারীরিক অবস্থা সংকটজনক হয়ে পড়ে। এর পর অনেক দিন পুরোপুরি ভেন্টিলেশনে ছিলেন তিনি।

শুক্রবার থেকে সৌমিত্রর শারীরিক অবস্থার আশঙ্কাজনক অবনতি ঘটতে থাকে। হৃদযন্ত্র আর কিডনির জটিলতা অনেকটা বেড়ে যায়। বেড়ে যায় ‘হার্ট রেট’।

বাড়তে থাকে স্নায়বিক সমস্যাও। প্রবলভাবে ওঠানামা করতে থাকে অক্সিজেনের মাত্রা।
অবশেষে চিকিৎসকদের সব চেষ্টা ব্যর্থ করে রবিবার দুপুরে মারা যান তিনি। এর আগের দিনই হাসপাতাল থেকে জানানো হয়, অলৌকিক কিছুর ওপর ভরসা করছেন তারা।

সৌমিত্রর পরিবারের আদি বাড়ি ছিল অধুনা বাংলাদেশের কুষ্টিয়ার শিলাইদহের কাছে কয়া গ্রামে। তিনি ১৯৩৫ সালের ১৯ জানুয়ারি পশ্চিমবঙ্গের নদীয়ায় জন্মগ্রহণ করেন।

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের আমহার্স্ট স্ট্রিট সিটি কলেজে সাহিত্য নিয়ে পড়াশোনা করেন সৌমিত্র। বড়পর্দায় তার সর্বপ্রথম কাজ বিশ্ব বিখ্যাত নির্মাতা সত্যজিৎ রায়ের ‘অপুর সংসার’ ছবিতে নাম ভূমিকায়, যা ১৯৫৯ সালে নির্মিত হয়। এর আগে রেডিওর ঘোষক ছিলেন সৌমিত্র এবং মঞ্চে ছোটখাটো চরিত্রে অভিনয় করতেন।

সত্যজিৎ রায়ের সঙ্গে ১৪টি ছবিতে অভিনয় করেন অভিনেতা। পরবর্তীকালে মৃণাল সেন, তপন সিংহ, অজয় করের মতো পরিচালকদের সঙ্গেও কাজ করেছেন। সিনেমা ছাড়াও নাটক, যাত্রা ও টিভি ধারাবাহিকে অভিনয় করেছেন। লিখেছেন নাটক-কবিতা লিখেছেন, নাটক পরিচালনাও করেছেন। আবৃত্তিকার হিসেবেও তার পরিচিতি ছিল।

ছয় দশকের বেশি সময় বিনোদনের সঙ্গে যুক্ত ছিল সৌমিত্র। উল্লেখযোগ্য ছবির মধ্যে আছে— অপুর সংসার, ক্ষুধিত পাষাণ, দেবী, স্বরলিপি, তিনকন্যা, পুনশ্চ, অতল জলের আহ্বান, অভিযান, বর্ণালী, প্রতিনিধি, চারুলতা, আকাশকুসুম, মনিহার, হঠাৎ দেখা, অজানা শপথ, অরণ্যের দিনরাত্রি, বসন্ত বিলাপ, অশনি সংকেত, দত্তা, জয় বাবা ফেলুনাথ, দেবদাস, গণদেবতা ও হীরক রাজার দেশে।

 

ডেসিমি/ইই/দেশ রূপান্তর





© All rights reserved © 2018 dailysylhetmedia
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ