সোমবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২১, ০৯:৫১ পূর্বাহ্ন

শীর্ষ সংবাদ : :
১৮ জানুয়ারি : আজকের দিনে মিথ্যা ধর্ষণ মামলা করে জেলে গেলেন দুই নারী মা-মেয়েকে নির্যাতনের পর মাথা ন্যাড়া, জামিন পেলেন সেই তুফান সরকার মির্জাজাঙ্গাল থেকে ৫০ পিস ইয়াবাসহ যুবক আটক এবার সিলেটে আসছেন ‘ভাস্কর্যবিরোধী’ আরেক বক্তা, আ.লীগ নেতার শেল্টার! যুক্তরাজ্যে ওসমানীনগরের দুই ভাইসহ তিনজনের মর্মান্তিক মৃত্যু নওয়াগাঁও তালামীযের শীতবস্ত্র বিতরণ সিলেটে খুললো পাথর কোয়ারি! বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমানের স্ত্রীর মৃত্যুতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর শোক সিলেটে ফল পরীক্ষায় হচ্ছে ‘কেমিক্যাল টেস্টিং ইউনিট’ মুক্তিযোদ্ধা নিজাম উদ্দিন লস্কর ময়না আর নেই সিলেট মহানগর আ.লীগের কার্যকরি কমিটির প্রথম সভা স্থগিত বিশ্বম্ভরপুরে আফসর উদ্দিন মাস্টারের দাপন সম্পন্ন, এলাকায় শোক সিলেটে আইনজীবীদের ইতিহাস গড়া সিদ্ধান্ত! বছরের প্রথম সংসদ অধিবেশন শুরু সোমবার নন্দিরগাঁও ইউনিয়ন ছাত্র কল্যাণ পরিষদের পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত গ্রামের বাড়ি সোনাপুর : মিনহাজ ফয়সল যুক্তরাষ্ট্রে সামরিক শাসন জারির প্রস্তাব ট্রাম্প সমর্থকের! ১৭ জানুয়ারি : আজকের দিনে নবীগঞ্জ পৌর নির্বাচনে বিএনপি এর মনোনীত প্রার্থী সাবির আহমেদ বিজয়ী
‘ক্রাইম পেট্রল’ দেখে কৌশল শিখে ভাই-ভাবি ও ভাতিজা-ভাতিজিকে হত্যা করে রাহানুর

‘ক্রাইম পেট্রল’ দেখে কৌশল শিখে ভাই-ভাবি ও ভাতিজা-ভাতিজিকে হত্যা করে রাহানুর

ডেইলি সিলেট মিডিয়া ডেস্কঃ সাতক্ষীরায় চাঞ্চল্যকর ফোর মার্ডারের ঘটনায় চার্জশিট দিয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। চার্জশিট প্রতিবেদন অনুযায়ী, কোমল পানীয়’র সঙ্গে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে ভাই-ভাবি ও ভাতিজা-ভাতিজিকে খাওয়ায় রাহানুর।

পরে ঘুমন্ত অবস্থায় চাপাতি দিয়ে গলা কেটে তাদের হত্যা করে। সে নিয়মিত ভারতীয় টিভি সিরিয়াল ‘ক্রাইম পেট্রল’ দেখত। ক্রাইম পেট্রল দেখেই সে খুনের এ কৌশল শেখে। সাতক্ষীরার কলারোয়ায় ওই হত্যাকাণ্ডের এক মাস পাঁচ দিন পর গত ২২ নভেম্বর চার্জশিট আদালতে দাখিল করা হয়।

মঙ্গলবার দুপুরে সিআইডি সদর দফতরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান সিআইডি খুলনা ও বরিশাল অঞ্চলের অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ ওমর ফারুক।

অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ ওমর ফারুক জানান, দুইটি মাদক মামলার আসামি রাহানুর। সে দীর্ঘদিন ফেনসিডিলের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে সেবন করত। ফেনসিডিলসহ পুলিশের হাতে ধরা পড়ে এবং জেলও খাটে। এরপর স্ত্রী ফাহিমার সঙ্গে তার ডিভোর্স হয়। চলতি বছরের জানুয়ারিতে রাহানুর বেকার অবস্থায় ভাই ও ভাবির সংসারে থাকতে শুরু করে। ভাবি সাবিনা খাতুন মাঝে মধ্যে টাকা প্রসঙ্গ তুলে তার সঙ্গে যে ব্যবহার করত- তা সে মেনে নিতে পারেনি। এক সময় ভাই-ভাবিসহ পুরো পরিবারকে হত্যার পরিকল্পনা করে রাহানুর।

ওমর ফারুক বলেন, হত্যার পরিকল্পনার অংশ হিসেবে স্থানীয় মো. আবু জাফরের দোকান থেকে দুটি স্পিড (কোমল পানীয়) কিনে রাহানুর তার মধ্যে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে দেয়। ঘুমের ওষুধ মেশানো এ পানীয় সে তার ভাই-ভাবি, ভাতিজি ও ভাতিজাকে খেতে দেয়। তারা ঘুমিয়ে পড়লে গত ১৫ অক্টোবর রাত সাড়ে ৩ টার দিকে চাপাতি দিয়ে প্রথমে তার ভাই এবং পরে ভাবিসহ বাকিদের হত্যা করে।

সিআইডি জানায়, রাহানুর মূলত তার ভাই ও ভাবিকে হত্যা করতে চেয়েছিল। কিন্তু হত্যাকাণ্ড চালানোর সময় তার ভাতিজা ও ভাতিজি জেগে ওঠে। এ কারণে সে তাদেরও হত্যা করে। ঘটনার পর রাহানুল হত্যার আলামত মুছে ফেলার চেষ্টা করে। তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত চাপাতিসহ রক্ত মাখা কাপড় উদ্ধার করা হয়।

গত ১৫ অক্টোবর ভোরে কলারোয়া উপজেলার হেলাতলা ইউনিয়নের খলসি গ্রামে একই পরিবারের চারজনকে গলাকেটে হত্যা করা হয়। তারা হলেন- শাহিনুর রহমান, তার স্ত্রী সাবিনা খাতুন, ছেলে সিয়াম হোসেন মাহী এবং মেয়ে তাসনিম সুলতানা। তবে ভাগ্যক্রমে বেঁচে যায় তাদের চার মাস বয়সী শিশু কন্যা মারিয়া সুলতানা। এ ঘটনায় ওইদিন রাতেই শাহিনুরের শাশুড়ি ময়না খাতুন বাদী হয়ে অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে কলারোয়া থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয় সিআইডির পুলিশ পরিদর্শক শফিকুল ইসলামকে।

মঙ্গলবারের সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- সিআইডি খুলনা অঞ্চলের বিশেষ পুলিশ সুপার আনিছুর রহমান, সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুক্তা ধর এবং সহকারী পুলিশ সুপার জিসানুল হক।





© All rights reserved © 2018 dailysylhetmedia
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ