সোমবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২১, ০৩:২৮ অপরাহ্ন

শীর্ষ সংবাদ : :
নিজ দল থেকে বহিষ্কৃত নেপালের প্রধানমন্ত্রী Radiant Hunt Model Agency বছরের ১ম যাত্রা শুরু করলো Fashion Fair এর মাধ্যমে ৩ বছর পর ওয়ানডেতে তাসকিন ২৫ জানুয়ারি : আজকের দিনে এমসি কলেজে ধর্ষণ মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ ২৭ জানুয়ারি সিলেটে আন্তর্জাতিক মানের পূর্ণাঙ্গ ক্রিকেট কমপ্লেক্স উদ্বোধন করলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশের চেয়ে যুক্তরাষ্ট্রে ধর্ষণ-বিচারবহির্ভূত হত্যা বেশি ঘটে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী সব ফসলে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়া খুবই চ্যালেঞ্জিং : কৃষিমন্ত্রী স্কুল-কলেজ খোলার সিদ্ধান্ত ৪ ফেব্রুয়ারির পর : শিক্ষামন্ত্রী শুধু নারীই নয় টাকা দিলেই আর যা যা মেলে কারাগারে ৭শ কোটি টাকার কাজ ১শ কোটিতে করে দেবেন মেয়র আরিফ! দুই অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল নিয়োগ পরীক্ষা ছাড়াই এইচএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশে বাধা কাটল মার্কিন নির্বাচনের চেয়েও বেশি ‘সৌহার্দ্য’ চসিক নির্বাচনে : সিইসি কাউকে জোর করে টিকা দেয়া হবে না : স্বাস্থ্যমন্ত্রী করোনায় আরও ২০ মৃত্যু, শনাক্ত ৪৭৩ বন্দির নারীসঙ্গ : কাশিমপুরের জেল সুপার ও জেলার প্রত্যাহার করোনার অ্যান্টিবডি পরীক্ষার অনুমতি দশম-দ্বাদশে নিয়মিত ক্লাস, বাকিদের সপ্তাহে এক দিন: শিক্ষামন্ত্রী খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, পাঠদানের নতুন নিয়ম
শ্বাসরুদ্ধকর ফাইনালে খুলনার শিরোপা জয়

শ্বাসরুদ্ধকর ফাইনালে খুলনার শিরোপা জয়

ডেইলি সিলেট মিডিয়া ডেস্ক :: বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের শ্বাসরুদ্ধকর ফাইনালে চট্টগ্রামকে ৫ রানে হারিয়ে শিরোপা জিতল খুলনা। ফ্রাঞ্চাইজি এ টুর্নামেন্টের শিরোপা জয়ে ফাইনালে দুর্দান্ত ব্যাটিং করেছেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। এরপর বল হাতে নৈপুণ্য দেখিয়েছেন শহিদুল ইসলাম ও হাসান মাহমুদ।

খুলনার বিপক্ষে ১৫৬ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে তীরে গিয়ে তরী ডুবে চট্টগ্রামের। ৩.৩ ওভারে দলীয় ২৬ রানে ফেরেন ওপেনার সৌম্য সরকার। ইমরুল কায়েসের হাতে ক্যাচ ‍দিয়ে নতুন জীবন পেয়েও এক বলের ব্যবধানে শুভাগত হোমের বলে এলবিডব্লিউ হন চট্টগ্রামের এই তারকা ওপেনার।

ওয়ান ডাউনে খেলতে নেমে সুবিধা করতে পারেননি অধিনায়ক মোহাম্মদ মিঠুন। আগের দুই ম্যাচে ৫৩ ও ৩৪ রান করা এই উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান এদিন ফেরেন মাত্র ৭ রানে। টুর্নামেন্টে সর্বোচ্চ ৩৯৩ রান করা ওপেনার লিটন এদিন ফেরেন ২৩ বলে ২৩ রান করে।

৫১ রানে সৌম্য, মিঠুন ও লিটনের উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়ে যাওয়া দলকে খেলায় ফেরাতে চেষ্টা করেন সৈকত আলী ও শামসুর রহমান শুভ। এ জুটিতে ৪৫ রান করে আউট হন শামসুর রহমান। সাজঘরে ফেরার আগে ২১ বলে ২৩ রান করেন জাতীয় দলে অনিয়মিত হয়ে যাওয়া এই তারকা ক্রিকেটার।

৯৬ রানে চার উইকেট পতনের পর মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতকে সঙ্গে নিয়ে লড়াই চালিয়ে যান সৈকত আলী।

জয়ের জন্য শেষদিকে ৩০ বলে চট্টগ্রামের প্রয়োজন ছিল ৫৭ রান। ১৬তম ওভারে মাশরাফি বিন মুর্তজাকে এক ছক্কা হাঁকিয়ে ১০ রান আদায় করে নেন সৈকত। ১৭তম ওভারে আল আমিন খরচ করেন মাত্র ৭ রান।

১৮ বলে প্রয়োজন ছিল ৪০ রান। শহীদুলের করা ওভারে ১১ রান নেন সৈকত আলী। জয়ের জন্য শেষ ১২ বলে প্রয়োজন ছিল ২৯ রান। ১৯তম ওভারের প্রথম পাঁচ বলে ৭ রান নেন মোসাদ্দেক-সৈকত আলী।

জয়ের জন্য ৭ বলে প্রয়োজন ছিল ২২ রান। ওই ওভারের শেষ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে ব্যবধান কমান মোসাদ্দেক। জয়ের জন্য শেষ ওভারে প্রয়োজন ছিল ১৬ রান। শহিদুলের প্রথম বলে সিঙ্গেল নেন সৈকত আলী। দ্বিতীয় বলে ডাবল রান নেন মোসাদ্দেক হোসেন। তৃতীয় বলে ক্যাচ তুলে দেন মোসাদ্দেক হোসেন।

জয়ের জন্য শেষ তিন বলে প্রয়োজন ১৩ রান। চতুর্থ বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন সৈকত আলী। অথচ তার ব্যাটে ভর করে জয় দেখেছিল চট্টগ্রাম। জয় থেকে মাত্র ১৩ রান দূরে থাকতে আউট হয়ে ফেরেন তিনি। তার আগে ৪৫ বলে ৫৩ রান করেন সৈকত আলী। তার বিদায়ের মধ্য দিয়ে চট্টগ্রামের পরাজয় নিশ্চিত হয়ে যায়। শেষ দুই বলে প্রয়োজন ছিল ১৩ রান। পঞ্চম বলে সিঙ্গেল নেন নাদিফ। শেষ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে পরাজয়ের ব্যবধান কমান নাহিদুল ইসলাম।

শুক্রবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে ইনিংসের প্রথম বলেই ক্যাচ তুলে দিয়ে সাজঘরে ফেরেন ওপেনার জহুরুল ইসলাম অমি। দলীয় ২১ রানে অফ স্পিনার সেই নাহিদুল ইসলাদের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন ইমরুল কায়েস।

দলীয় ৪৩ রানে ২০ বলে ২৫ রানে ফেরেন অন্য ওপেনার জাকির হোসেন। চতৃর্থ উইকেটে আরিফুল হককে সঙ্গে নিয়ে ৪০ রানের জুটি গড়েন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ২৩ বলে ২১ রানে ফেরেন আরিফুল। তার বিদায়ের পর আর কোনো ব্যাটসম্যান যোগ্য সঙ্গ দিতে পারেননি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে। তিনি একাই ইনিংসের শেষ বল পর্যন্ত খেলে যান। তার একার লড়াইয়ে শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেট হারিয়ে ১৫৫ রান করে খুলনা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর
খুলনা: ২০ ওভারে ১৫৫/৭ (মাহমুদউল্লাহ ৭০*, জাকির হোসেন ২৫; নাহিদুল ২/১৯, শরিফুল ২/৩৩)।
চট্টগ্রাম:২০ ওভারে ১৫০/৬ (সৈকত আলী ৫৩, লিটন ২৩, শামসুর রহমান ২৩; শহিদুল ইসলাম ২/৩৩)।
ফল: খুলনা ৫ রানে জয়ী।
ম্যাচসেরা: মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (খুলনা)।

ডেসিমি/ইই/যুগান্তর





© All rights reserved © 2018 dailysylhetmedia
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ