শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৬:০১ পূর্বাহ্ন

শীর্ষ সংবাদ : :
২৭ ফেব্রুয়ারি : আজকের দিনে বাংলাদেশ মাধ্যমিক বিদ্যালয় গ্রন্থাগার সমিতির আত্মপ্রকাশ ধর্মপাশায় হ্যান্ডটলির নিচে চাপা পড়ে শিশুর মৃত্যু নিসচা সিলেট মহানগর শাখার শোক প্রকাশ বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট গোলাপগঞ্জ পৌর শাখার কমিটি গঠন গাঁজা বেচে মাসে সোয়া ৪ কোটি টাকা আয়! সিলেট রশিদপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৮ সিলেট পূর্ব জেলা তালামীযের মতবিনিময় সম্পন্ন ২৬ ফেব্রুয়ারি : আজকের দিনে সারাদেশের ন্যায় সিলেটেও ক্যাম্পাস হোস্টেল খোলার দাবিতে বিক্ষোভ প্রেমের ফাঁদে ফেলে কলেজছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণ ধর্মপাশায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে নারীসহ আহত ১২, দোকানপাট ও বাড়িঘরে হামলা, ভাংচুর সিলেটে আসা প্রবাসীদের জন্য নতুন নির্দেশনা ১০ থেকে ১২ হাজার লোকবল রেলে নিয়োগ দেওয়া হবে: রেলমন্ত্রী টিকা নেওয়ার পর মনে করবেন না সব সমাধান হয়ে গেছে : প্রধানমন্ত্রী জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সব পরীক্ষার নতুন সময়সূচি ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্রে অনিবন্ধিত বাংলাদেশিদের বৈধ করার আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এড. খসরু’র মৃত্যুতে সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির শোক প্রকাশ শাহবাগে বিক্ষোভ থেকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০ শিক্ষার্থী আটক ২৫ ফেব্রুয়ারি : আজকের দিনে
শাল্লায় ফসলরক্ষা বাঁধের কাজের অবস্থা লেজে-গোবরে !

শাল্লায় ফসলরক্ষা বাঁধের কাজের অবস্থা লেজে-গোবরে !

শাল্লা প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলায় চলতি ২০২০-২১ অর্থ বছরে হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণ/মেরামত কাজের অবস্থা একেবারে লেজে-গোবরে দেখা যায়।

উপজেলার ছায়ার হাওর উপ-প্রকল্পের অধিন পার্শ্ববর্তী খালিয়াজুরী উপজেলার কৃষ্ণপুর ইউনিয়ন ও ইটনা উপজেলার ধনপুর ইউনিয়ন এলাকার সবকটি বাঁধেই একই অবস্থা পাওয়া যায়। অন্যদিকে বাঁধের কাজে অসন্তোষ প্রকাশ করেন এলাকাবাসি।

সোমবার ২২ ফেব্রুয়ারি কৃষ্ণপুর ইউনিয়নের কল্যাণপুর বাজার সংলগ্ন ১৫৩নং পিআইসি’তে গিয়ে সাইনবোর্ডের অর্ধেক অংশ পাওয়া যায়। দেখা মেলেনি পিআইসির সদস্যদের। হাতেগোনা কয়েকজন শ্রমিক বাঁধে কাজ করছেন। করা হচ্ছে না কোনোরূপ কম্পেকশন। মানা হচ্ছেনা নির্ধারিত প্ল্যান ও ডিজাইন। ১৪৮নং পিআইসি’তে গিয়েও দেখা যায় একই অবস্থা। এখানেও মানা হচ্ছেনা বাঁধ নির্মাণের নীতিমালা। ওই বাঁধ এলাকার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শ্যামপুর গ্রামের কয়েকজন কৃষক জানান ১৪৮ ও ১৪৭ নং পিআইসি দু’টি কোনো প্রয়োজনই ছিলনা। এদিক দিয়ে কোনো বছরই হাওরে পানি ঢুকেনা। কেন সরকারের টাকা খরচ করা হচ্ছে আমরা জানি না। বাঁধটির প্রয়োজন নেই বিষয়ে জানতে চাইলে ১৪৮নং পিআইসির সদস্য সচিব শতদয় সরকার বাদল বলেন, আমরা জানি না প্রয়োজন আছে কি না ? পানি উন্নয়ন বোর্ড এদিকে বাঁধ দিতে বলেছে আমরা বাঁধ করছি। এতে সরকারের টাকার কি হলো তা আমরা জানি না।
তাছাড়া ওই এলাকার সবকটি বাঁধ ঘুরে দেখা যায় অধিকাংশ বাঁধেই বালি মাটি দেয়া হচ্ছে। বাঁধে নেই কোনো প্রোফাইল, শ্রমিকরা হালকা হালকা বাঁশের টুকরো ও কাটের ছটি দিয়ে মাটি কম্পেকশনের কাজ করছে। যা সামান্য বৃষ্টি হলেই ধ্বসে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে।

আবার ইটনা উপজেলার ধনপুর ইউনিয়ন এলাকার ১৩৮নং বাঁধে গিয়ে দেখা মিলেনি পিআইসি’র সদস্যদের। নিয়োজিত শ্রমিকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, পিআইসি’র লোকজন বাঁধে আসেনি। তারা বাড়িতেই থাকে। আমার সারাদিন কাজ করি। বাঁধটি কাদা ও বালি মাটি দিয়ে করা হচ্ছে। পাশের ১৩৭নং পিআইসি’তে গিয়েও দেখা যায় আরো নাজুক অবস্থা। বাঁধের উপর অংশের প্রস্থও কোনো স্থানে ঠিক নেই। করা হচ্ছেনা কম্পেকশন, নেই কোনোরূপ স্লোভ ও সম্পুর্ণ বাঁধেই দেখা যায় বালি মাটি। যা বৃষ্টি হলেই ধ্বসে যাবে।

শুধু তাই নয়, কৃষ্ণপুর ও ধনপুর ইউনিয়ন দু’টির বাঁধে বাঁধে ঘুরে দেখা মেলেনি কোনো তদারকি কর্মকর্তার। এ বিষয়ে এলাকাবাসি জানান, কি বলবো ভাই, এবছর পিআইসিরা যেভাবে কাজ করছে, তাতে আমাদের ফসলের কি হবে জানি না। তবে তারা এইটুকুও বলছেন যে, যদি অকাল বন্যায় তাদের ফসল তলিয়ে যায় তাহলে এর দায় সংশ্লিষ্ট পওর বিভাগ ও উপজেলা প্রশাসনকেই নিতে হবে। কোনো ছাড় দেয়া হবে না।

এ বিষয়ে দিরাই পওর-২ বিভাগের শাল্লা উপজেলা শাল্লা কর্মকর্তা ও উপ-সহকারী প্রকৌশলী মোঃ আব্দুল কাইয়ূম জানান, বার বার পিআইসি’দের তাগিদ দেয়া হচ্ছে বাঁধের কাজ শেষ করার জন্য। আশা করা যাচ্ছে আগামি ৪/৫ দিনের মধ্যেই বাঁধে কাজ শেষ হবে। এরপরও তদারকি টীম বাঁধের কাজ পরির্দশনে আছেন।

ডেসিমি/ইই





© All rights reserved © 2018 dailysylhetmedia
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ