বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১, ১১:০১ অপরাহ্ন

শীর্ষ সংবাদ : :
ছাত্রদল নেতা মাসরুর রাসেলের পিতৃবিয়োগে খন্দকার মুক্তাদিরের শোক গোলাপগঞ্জে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা লকডাউন তুলে নিলে জেলে চলে যাবো : বাবুনগরী শাবির ল্যাবে নমুনা পরীক্ষায় মঙ্গলবার ৭৩জনের করোনা পজিটিভ শাল্লায় বিএনপি নেতা নোমান গ্রেফতার শাল্লায় অফিস থেকে মহিলা শ্রমিককে ধাক্কা মেরে বের করে দেন উপ-সহকারি প্রকৌশলী লকডাউন ভেঙ্গে সিলেটে পরিবহন শ্রমিকদের বিক্ষোভ ভারতে করোনার ‘ট্রিপল মিউট্যান্টের’ হানা এমপি মানিকের সাথে নব গঠিত দোয়ারাবাজার সমিতির সাক্ষাৎ লকডাউনে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য সাড়ে ১০ কোটি টাকা বরাদ্দ প্রধানমন্ত্রীর মহিলা দল নেত্রী আফরোজা শোভা বহিষ্কার কওমি মাদরাসার কর্তৃত্ব হারাচ্ছে হেফাজত : ভেঙে দেওয়া হতে পারে বর্তমান কমিটি স্বাস্থ্যবিধি মেনে খুলছে দোকানপাট! সিলেটে ট্রাভেলস ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ৭ লাখ টাকার চেক ডিজঅনার মামলা সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে দ্য হেল্পিং উইং শাল্লার ঘুঙ্গিয়ারগাঁও বাজারে অগ্নিকান্ড ৫লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি জৈন্তাপুরে মোবাইল কোর্টে ৬ ব্যক্তিকে জরিমানা নবীগঞ্জে এতিম শিক্ষার্থীদের মাঝে পুলিশ সুপারের ইফতার সামগ্রী বিতরণ শাবির ল্যাবে নমুনা পরীক্ষায় ৭৭জনের করোনা পজিটিভ সিলেটে নুরের বিরুদ্ধে ছাত্রলীগ নেতার মামলা
নবীগঞ্জে অবৈধ বালু উত্তোলন : প্রশাসন নীরব, ক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী

নবীগঞ্জে অবৈধ বালু উত্তোলন : প্রশাসন নীরব, ক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী

এটিএম ফোয়াদ হাসান, নবীগঞ্জ(হবিগঞ্জ) :: নবীগঞ্জে কুশিয়ারা নদী থেকে বালু উত্তোলনের ফলে প্রাকৃতিক সম্পদ ধ্বংসের পাশাপাশি হুমকির মুখে পড়েছেন তীরবর্তী এলাকার বাসিন্দারা। অপর দিকে বালু উত্তোলনে বর্ষা মৌসুমে প্রতি বছর হুমকিতে পড়ছে কুশিয়ারা নদীর বাঁধ। আর এই বাঁধ নির্মাণে সরকারের ব্যয় হচ্ছে কোটি কোটি টাকা।

অব্যাহত বালু উত্তোলনে নীরবে কাঁদছে নদীটি। উপজেলা প্রশাসনের জেল জরিমানা থাকলেও ধরা ছোঁয়ার বাহিরে বালু উত্তোলনকারীরা।
এদিকে নদী থেকে বালু বহনকারী দুই একটা ট্রাক ভর্তি বালু আটক হলেও বালুখেকুরা ধরা ছোঁয়ার বাহিরে রয়ে যাচ্ছে। তাদের লাগাম ধরতে অনেকটাই ব্যর্থ প্রশাসন। এমনটাই বলছেন সচেতন মহল।

নবীগঞ্জ উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নের কসবা গ্রামে কুশিয়ারা নদীর তীর কেটে বালু উত্তোলনের মহাউৎসব দেখা যায়। লাইনের লাইন ট্রাক দাঁড় করিয়ে নদী থেকে বালু তুলে ভর্তি করা হচ্ছে। আর এসব বালু বিক্রি হচ্ছে উপজেলার বিভিন্ন এলাকাসহ দেশব্যাপী।

বালু উত্তোলনে কাজ করতে আসা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বেশ কয়েকজন শ্রমিক জানান, এই এলাকার কসবা গ্রামের সুরুজ উল্লাহর পুত্র রাসেল মিয়া এবং একই গ্রামের ইরাজ উল্লাহর পুত্র সুনাম মিয়া গংরা অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করাচ্ছে।

অলোচনায় রয়েছে ইনাতগঞ্জ ইউনিয়ন তহসিল অফিসের যোগসাজেসের। স্থানীয়দের অভিযোগ তহসিল অফিসের জনৈক ব্যাক্তিদের বড় অংকের টাকা দেওয়া হচ্ছে। স্বল্প ব্যয়ে বালু উত্তোলন করে তারা ব্যাপক কালো টাকা মালিক হচ্ছে। তবে তাদের খুঁটির জোর কোথায়? প্রশ্নটি ঘুরপাক খাচ্ছে স্থানীয়দের মধ্যে।

বিষয়টি নিয়ে রাসেল ও সুনামের সাথে সাংবাদিকরা কথা বলতে চাইলে তারা কোনো ধরণের কথা বলতে রাজি হননি। তবে একাধিকবার সংবাদ প্রকাশ হলেও চোখে পড়ার মত কোনো অভিযান নেই। সংবাদে বালুখেকুদের নামও প্রকাশ পাচ্ছে।

এব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ মহি উদ্দিন আহমেদ জানান, প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। বালু উত্তোলনকারীদের নাম প্রকাশ করে প্রশাসনকে সহযোগিতা করতে সাংবাদিকদের অনুরোধ করেন তিনি।

ডেসিমি/ইই





© All rights reserved © 2018 dailysylhetmedia
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ