শনিবার, ১৯ Jun ২০২১, ১২:৫৮ অপরাহ্ন

শীর্ষ সংবাদ : :
করোনা ভ্যাক্সিন সহজলভ্য করতে জাতিসংঘকে ভূমিকা নিতে বললেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী তাহিরপুরে যাদুকাটা নদীতে নৌকা ডুবে নিখোঁজ এক বিজয় নিশ্চিত করতে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করতে হবে : এড. নাসির খান মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সিলেট জেলা ইউনিটের যৌথ সভা অনুষ্ঠিত সিলেটে ‘ডেভেলপ আওয়ার বিজনেস বাই স্টোরি সেলিং’ শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মসূচী সিলেটে যেসব এলাকায় শুক্রবার বিদ্যুৎ থাকবে না চা শ্রমিকদের মজুরী নির্ধারণের দাবীতে সিলেট ভ্যালীর আলোচনা সভা সাবেক মেয়র কামরানের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে সিলেট জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল উন্নয়নের স্বার্থে দলের টানে সবাই আজ এক মোহনায় মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সিলেট জেলা ইউনিটের যৌথ সভা অনুষ্ঠিত নবীগঞ্জে অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ : ৭ মাসেও আলো দেখেনি তদন্ত কমিটি সিলেটের গোয়াইনঘাটে মাসহ দুই সন্তানকে গলা কেটে হত্যা আজ থেকে ট্রাফিক পক্ষ শুরু হচ্ছে সিলেটে মনোনয়নপত্র জমা দিলেন হাবিবুর রহমান কামরানের ১ম মৃত্যু বার্ষিকীতে জেলা আওয়ামী লীগের মিলাদ মাহফিল বড়লেখায় দৌলতপুর ওয়েলফেয়ার সোসাইটির পক্ষ থেকে নির্মাণাধীন মসজিতে নগদ অর্থ প্রদান বিএনপি নেতা বীরমুক্তিযোদ্ধা রাজ্জাকের রোগমুক্তি কামনা করেছেন নাসিম বীর মুক্তিযোদ্ধা স্বপন কুমার রায়ের পরলোক গমন সিলেট সদর দলিল লেখক সমিতির আয়োজনে সিলেট সদর সাবরেজিস্ট্রার পারভীন আক্তারের বিদায় সংবর্ধনা ‘মান্নান আমার বন্ধু’ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ফেসবুক স্ট্যাটাস
বিয়ের ৮ মাসের মাথায় ইফতারি না দেয়ায় লাশ হতে হলো নবীগঞ্জের শরিফাকে!

বিয়ের ৮ মাসের মাথায় ইফতারি না দেয়ায় লাশ হতে হলো নবীগঞ্জের শরিফাকে!

এটিএম ফোয়াদ হাসান, নবীগঞ্জ :: সিলেট জেলার ওসমানীনগরে বিয়ের আট মাসের মাথায় শ্বশুর বাড়ির লোকজনের নির্যাতনে শরিফা বেগম (২০) নামের ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা এক গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার (০৮ মে) দুপুরে নিহত গৃহবধু শরিফার স্বামী ওসমানী নগর উপজেলার উছমানপুর ইউপির তাহিরপুর গ্রামের আরশ আলীর বসতঘর থেকে শরিফার লাশ উদ্ধার করে থানা পুলিশ। নিহত শরিফা বেগম (২০) নবীগঞ্জ উপজেলার পিটুয়া গ্রামের শাকিম উল্যার ছোট মেয়ে।

নিহত গৃহবধূর পিত্রালয় থেকে রমজানের ইফতারি জামাকাপড় সহ বিভিন্ন উপঢৌকন না দেয়ার কারণে গৃহবধূ শরিফা বেগমের স্বামী শাশুড়িসহ পরিবারের লোকজন শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে শরিফাকে হত্যার অভিযোগ করেছেন নিহতের ভাইসহ তার পিতার বাড়ির লোকজন। এ ঘটনায় নিহত গৃহবধু শরিফার বড় ভাই ইসলাম উদ্দিন বাদি হয়ে শনিবার রাত পৌনে ৯টার দিকে নিহতরে স্বামী ও শাশুড়িকে আসামি করে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ এনে ওসমানীনগর থানায় মামলা দায়ের করেন (মামলা নং-০৫)। মামলার প্রেক্ষিতে ওসমানীনগর থানার ওসি শ্যামল বণিকের নেতৃত্বে পুলিশ অভিযান চালিয়ে নিহতরে স্বামী আরশ আলী ও শাশুড়ি মিনারা বেগমকে আটক করেছে।

তবে গৃহবধূ শরিফা বেগমের স্বামী ও শাশুড়ি দাবি করেছেন শরিফা বেগম গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

পুলিশ ও নিহত গৃহবধুর পিতার পরিবার সূত্রে জানা, প্রায় ৮ মাস পূর্বে ওসমানী নগর উপজেলার উসমানপুর ইউনিয়নের তাহিরপুর গ্রামের মৃত ইছন আলীর পুত্র আরশ আলীর সাথে হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়নের পিঠুয়া সদরাবাদ গ্রামের শাকিম উল্যার ছোট মেয়ে শরিফার বিয়ে হয়। বিয়ের কিছু দিন যেতে না যেতেই যৌতুকসহ বিভিন্ন উপঢৌকনের জন্য স্বামী আরশ আলী ও শাশুড়ি মিনারা বেগম মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন করতে থাকেন গৃহবধূ শরিফাকে। শরিফা অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পরায় স্বামী ও শাশুড়ির নির্যাতন সহ্য করে গর্ভের সন্তানকে আলোর মুখ দেখাতে স্বামীর বাড়িতে পরে থাকেন। চলতি রমজান মাসে তার পিত্রালয় থেকে ইফতারী দিতে দেরি করায় এবং ইফতারীর সাথে বরের জন্য আলাদা ভাবে সাজানো থালাসহ দামি উপঢৌকন না দেয়ায় অন্তঃসত্ত্বা শরিফার ওপর নির্যাতনের মাত্রা আরও বেড়ে যায়। শুক্রবার সন্ধ্যায় শরিফার পিত্রালয় থেকে স্বামীর বাড়ির লোকজনের জন্য ঈদের নতুন কাপড় না আসাকে কেন্দ্র করে শাশুড়ির সাথে কথা কাটাকাটির জের ধরে আরশ আলী ও মিনারা বেগম মিলে মারপিট করেন শরিফাকে। বিষয়টি তাৎক্ষণিক মোবাইল ফোনের মাধ্যমে শরিফা তার ভাইকে অবগত করে পরে কথা বলবে বলে ফোন রেখে দেন।

শনিবার (০৮ মে) বড় বোন শিপন আক্তার শরিফার স্বামী শাশুড়ির জন্য নতুন কাপড় নিয়ে আরশ আলীর বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিলেই পথিমধ্যে শরিফার বাসুরের মাধ্যমে খবর পান তার বোন খুবই অসুস্থ। এর কিছুক্ষণের মধ্যে আবার খবর আসে শরিফা আত্মহত্যা করে মৃত্যুবরণ করছে। খবর পেয়ে দুপুরে ওসমানী নগর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে শরিফার লাশ স্বামীর বাড়ি থেকে উদ্ধার করে। লাশ উদ্ধারের পর সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি কালে পুলিশ নিহত শরিফার শরীরের একাধিক স্থানে আঘাতের চিহ্ন পায়। পরে ময়না তদন্তের জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে নিহত শরিফা বেগমের লাশ প্রেরণ করে পুলিশ।

নিহত গৃহবধূ শরিফা বেগমের বড় বোন শিপন আক্তার ও বড় ভাই ইসলাম উদ্দিন অভিযোগ করে বলেন, বিয়ের পর থেকেই তাদের বোনের ওপর তার স্বামী ও শাশুড়ি যৌতুকসহ নানা অযুহাতে নির্যাতন চালাতো। তাদের নির্যাতনের কারণে তারা তাকে নিয়ে যেতে চাইলেও গর্বের সন্তানের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে তাদের বোন সব কিছু নীরবে সহ্য করে গেছে। তারা গরিব মানুষ লকডাউনের কারণে অভাবঅনটনে চলতি রমজান মাসে ইফতারী পাঠাতে দেরি ও আরশ আলীর জন্য আলাদা করে সাজানো থালা না দেয়ায় তার স্বামী ও শাশুড়ি শরিফাকে নানা ভাবে নির্যাতন করে। সর্বশেষ নতুন কাপড় পাঠাতে দেরি করায় তারা তাদের বোনকে নির্যাত করে মেরে ফেলেছে। তারা এর দৃষ্ঠান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

ওসমানীগর থানার ওসি শ্যামল বণিক ঘটনার সত্যতা নিশ্চত করে বলেন, নিহত গৃহবধূ শরিফার লাশ তার স্বামীর বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। নিহত গৃহবধুর শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। নিহতের বড় ভাই বাদি হয়ে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেছেন। নিহতের ময়না তদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর নিশ্চিত হওয়া যাবে ঘটনাটি হত্যা না অন্য কিছু। নিহতের স্বামী ও শাশুড়িকে আটক করা হয়েছে।

ডেসিমি/ইই





© All rights reserved © 2018 dailysylhetmedia
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ